আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনের আজ নেতা নির্বাচনের পালা

আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনের আজ নেতা নির্বাচনের পালা

প্রথম পর্বের আনুষ্ঠানিকতা শেষ গতকাল। এবার নেতা নির্বাচনের পালা। বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার বিকেলে আওয়ামী লীগের উদ্বোধনী পর্ব শেষ হয়েছে। আজ সকাল ১০টায় বসবে অধিবেশন পর্ব। এই পর্বেই নতুন নেতা নির্বাচন করা হবে। তবে নতুন কমিটিতে কারা থাকছেন, আর কারা বাদ পড়ছেন, এ নিয়ে গতকাল রাত পর্যন্ত অন্ধকারে নেতারা। ফলে আজ বিকেল পর্যন্ত পদপ্রত্যাশীদের উৎকণ্ঠা থাকবেই।

আগত কাউন্সিলর ও প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাঁরা পরবর্তী সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া আর কাউকে ভাবছেন না। সবাই সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে একবাক্যে সমর্থন দেবেন। সাধারণ সম্পাদকসহ ৮১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির বাকি ৮০ পদের মধ্যে কার কী অবস্থান হবে, সেটা পুরোপুরিই দলীয় সভাপতির ওপর নির্ভর করছে।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্র বলছে, গত বুধবার রাতে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা পরবর্তী কমিটি নিয়ে কোনো ইঙ্গিত দেননি। বৃহস্পতিবার দিনভর, এমনকি গতকাল সকালেও দলের গুরুত্বপূর্ণ কোনো কোনো নেতা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গণভবনে যান। কিন্তু অধিকাংশ নেতাই সাক্ষাৎ পাননি। কেউ কেউ সাংগঠনিক মর্যাদার কারণে সাক্ষাৎ পেলেও নতুন কমিটিতে নিজের অবস্থান কী হবে, তা জানতে পারেননি। বিশেষ করে সাধারণ সম্পাদক পদে ওবায়দুল কাদেরই থাকবেন, নাকি নতুন কাউকে নির্বাচন করা হবে—এ বিষয়েও কিছু বলেননি দলীয় প্রধান।

২০১৬ সালের সম্মেলনের তিন-চার দিন আগেই সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জায়গায় ওবায়দুল কাদেরকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দেখার কথা জানিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। এবার শেষ মুহূর্তেও এ ব্যাপারে চুপ থাকায় নানা ব্যাখ্যা করছেন দলের নেতারা। কেউ কেউ মনে করেন, সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন হবে না বলেই কোনো বার্তা দিচ্ছেন না দলীয় প্রধান। কারও কারও মতে, দলীয় প্রধান কাউন্সিলরদের মনোভাব বুঝে হয়তো শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত জানাবেন। এতে চমকে দেওয়ার মতো কিছু থাকলেও থাকতে পারে।